প্রশ্নোত্তরমাসায়েরমাহে রমজানহাদিসের বানী

শাবান মাসে সাওম রাখার বিধান কী? বিস্তারিত আলোচনা

শাবান মাসে সাওম রাখার বিধান কী? বিস্তারিত আলোচনা।

শাবান মাসে সাওম রাখার বিধান কী এই বিষয়ে অনেকেরই অনেক মত রয়েছে এর ফলে সাধারণ মুসলমান যারা তারা বিভ্রান্তিতে পরে যাই। তাই আজকে আপনাদের সাথে ইস্পষ্ট ভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করবো ইনশাল্লাহ।

উত্তর: শাবান মাসে সাওম রাখা এবং অধিক হারে রাখা সুন্নাত। আয়েশা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু বলেন, مَا رَأَيْتُهُ أَكْثَرَ صِيَامًا مِنْهُ فِي شَعْبَان “শাবান মাস ছাড়া অন্য কোনো সময় আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে এত বেশি সাওম রাখতে দেখি নি।”[1] এ হাদীস অনুযায়ী শাবান মাসে অধিকহারে সাওম রাখা উচিৎ।

আমাদের ওয়েবসাইটে আরও পড়তে এখানে ক্লিক করুন।

বিদ্বানগণ বলেন, শাবান মাসে সাওম রাখা সুন্নাতে মুআক্কাদা সালাতের অনুরূপ। এ সাওম যেন রামাযান মাসের ভুমিকা। অর্থাৎ রামাযানের পূর্বের সুন্নাত সাওম। অনুরূপভাবে শাওয়ালের সাওম রামাযানের পরের সুন্নাতস্বরূপ। যেমন ফরয সালাতের আগে ও পরে সুন্নাত রয়েছে।তাছাড়া শাবান মাসে সাওমের উপকারিতা হচ্ছে, নিজেকে রামাযানের সাওম রাখার ব্যাপারে প্রস্তুত করা, সাওময় অভ্যস্ত করে তোলা। যাতে করে ফরয সাওম রাখা তার জন্য সহজসাধ্য হয়।[2]

আরও ভিবিন্ন বিষয়ে পড়তে এখানে ক্লিক করুন।


[1] সহীহ বুখারী, অধ্যায়: সিয়াম, অনুচ্ছেদ: শাবানের সিয়াম।

[2] কিন্তু নির্দিষ্ট আকারে শুধুমাত্র মধ্য শাবাননে অর্থাৎ ১৫ তারিখে সিয়াম রাখা বিদআত। আমাদের দেশে এটাকে শবে বরাতের সিয়াম বলা হয়। কেননা এর ভিত্তি সহীহ সুন্নাহ্ থেকে প্রমাণিত নয়। ইবনু মাজার বর্ণনায় বলা হয়ঃ “মধ্য শাবান এলে তোমরা রাত্রিতে ইবাদত করবে ও দিনে সিয়াম পালন করবে..।” এ হাদীসটি জাল। কেননা এর সনদে ইবনু আবী সাবরাহ্ নামক জনৈক বর্ণনাকারী রয়েছে। সে হাদীস জাল করত। (আহকামু রজব ওয়া শাবান।)- অনুবাদক।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close