জরুরী মাসায়েলমাসায়ের

গোসল ফরজ হওয়ার কারন সমূহ

যে কারনে গোসল ফরজ হয়ঃ

১। বীর্যপাতঃ
বীর্য হলো: গাড়-সাদা পানি যা যৌন-উত্তেজনাসহ ঠিকরে বের হয়, যারপর শরীর অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়ে। বীর্য গন্ধে অনেকটা পঁচা ডিমের মতো।

২। সঙ্গম ঘটলেঃ
পুরষাঙ্গ ও যোনির সম্মিলনকে সঙ্গম বলে। আর এটা ঘটে পুরষাঙ্গের পুরো অগ্রভাগ যোনির অভ্যন্তরে প্রবেশ করার ফলে। এতটুকু হলেই সঙ্গম বলে ধরা হবে এবং বীর্যপাত না ঘটলেও গোসল ফরজ হয়ে যাবে।

৩। কাফির ব্যক্তি মুসলমান হলেঃ
এর প্রমাণ কায়েস ইবনে আসেম যখন ইসলাম গ্রহণ করেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে গোসল করার নির্দেশ দেন। [বর্ণনায় আবু দাউদ]

৪। হায়েয ও নিফাস বন্ধ হলেঃ
আয়েশা (রাঃ) বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ফাতিমা বিনতে আবি হুবাইশ (রাঃ) কে বলেন, ‘হায়েয এলে নামাজ ছেড়ে দাও, আর হায়েয চলে গেলে গোসল করো ও নামাজ পড়ো।’ নিফাস হলো হায়েয এর মতো, এ ব্যাপারে কারো দ্বীমত নেই। (বর্ণনায় বুখারী ও মুসলিম)

৫। মৃত্যু ঘটলেঃ
রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর কন্যা যায়নাব (রাঃ) এর মৃত্যুর পর তিনি বলেছেন, ‘তাকে তিনবার গোসল দাও, অথবা পাঁচবার অথবা তারও বেশি যদি তোমরা ভালো মনে করো।’[বর্ণনায় বুখারী ও মুসলিম]

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close