হাদিসের বানী

বিশ্ব নবী (সাঃ) এর একটি মকবুল দোয়া রয়েছে, যা এখনো করা হয়নি।

সহীহ বুখারী অধ্যায়ঃ ৮০/১, হাদিস নং ৬৩০৪, ৬৩০৫

বিশ্ব নবী (সাঃ) এর একটি মকবুল দোয়া রয়েছে, যা এখনো করা হয়নি।

প্রত্যেক নবি রাসুলদের একটি করে সুযোগ রয়েছে মকবুল দোয়া করার, সেই দোয়াটি সব নবিরাই করেছে,  আজকে আমরা জানবো বিশ্ব নবী (সাঃ) এর একটি মাকবুল দোয়া সম্পর্কে।

আল্লাহ তা‘আলার বাণীঃ
ادْعُونِي أَسْتَجِبْ لَكُمْ ۚ إِنَّ الَّذِينَ يَسْتَكْبِرُونَ عَنْ عِبَادَتِي سَيَدْخُلُونَ جَهَنَّمَ دَاخِرِينَ
তোমরা আমাকে ডাকো, আমি (তোমাদের ডাকে) সাড়া দেব। যারা অহংকারবশতঃ আমার ‘ইবাদাত করে না, নিশ্চিতই তারা লাঞ্ছিত অবস্থায় জাহান্নামে প্রবেশ করবে।’’ (সূরা আল-মু’মিন ৬০)

প্রত্যেক নবীদের একটি করে মকবুল দোয়া রয়েছে। য সকল নবীরা দুনিয়ায় বসে করে গেছেন, শুধু মাত্র বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) সে দোয়াটি এখনো করেননি। কেন করেননি সে বিষয় হাদিসে বর্ণিত আছে-
حَدَّثَنَا إِسْمَاعِيلُ، قَالَ حَدَّثَنِي مَالِكٌ، عَنْ أَبِي الزِّنَادِ، عَنِ الأَعْرَجِ، عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم قَالَ”‏ لِكُلِّ نَبِيٍّ دَعْوَةٌ يَدْعُو بِهَا، وَأُرِيدُ أَنْ أَخْتَبِئَ دَعْوَتِي شَفَاعَةً لأُمَّتِي فِي الآخِرَةِ ‏”‏‏‏
অর্থহঃ যরত আবু হুরাইরাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূল (সাঃ) বলেছেনঃ প্রত্যেক নবীর এমন একটি দুয়া রয়েছে যা (মহান আল্লাহর নিকট) গৃহীত হয় আর প্রত্যে নবী সে দুয়া করে থাকেন। আমার ইচ্ছা, আমি আমার সে দুয়ার অধিকার আখিরোতে আমার উম্মতের শাফায়াতের জন্য মূলতবি রাখি। (সহীহ বুখারী অধ্যায়ঃ ৮০/১, হাদিস নং ৬৩০৪)

ইসলামিক গল্প পড়তে এখানে ক্লিক করুন।

অন্য হাদিসে বর্নিত আছেঃ
وَقَالَ لِي خَلِيفَةُ قَالَ مُعْتَمِرٌ سَمِعْتُ أَبِي عَنْ أَنَسٍ عَنْ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ كُلُّ نَبِيٍّ سَأَلَ سُؤْلاً أَوْ قَالَ لِكُلِّ نَبِيٍّ دَعْوَةٌ قَدْ دَعَا بِهَا فَاسْتُجِيبَ فَجَعَلْتُ دَعْوَتِي شَفَاعَةً لأ÷ُمَّتِي يَوْمَ الْقِيَامَةِ.
অর্থঃ আনাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন যে, প্রত্যেক নাবীই যা চাওয়ার চেয়ে নিয়েছেন। অথবা নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ প্রত্যেক নাবীকে যে দু‘আর অধিকার দেয়া হয়েছিল তিনি সে দু‘আ করে নিয়েছেন এবং তা কবূলও করা হয়েছে। কিন্তু আমি আমার দু‘আকে ক্বিয়ামাতের দিনে আমার উম্মাতের শাফায়াতের জন্য রেখে দিয়েছি। (সহীহ বুখারী অধ্যায়ঃ ৮০/১, হাদিস নং ৬৩০৫)।

জরুরী মাসয়ালা জানতে এখানে ক্লিক করুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close